logo
   প্রচ্ছদ  -   শিক্ষাঙ্গন

আনন্দঘন পরিবেশে হবে প্রাথমিকের পাঠদান
Posted on Sep 03, 2019 11:06:46 AM.

আনন্দঘন পরিবেশে হবে প্রাথমিকের পাঠদান

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আনন্দঘন পরিবেশে পাঠদানের লক্ষ্যে কর্মসূচি গ্রহণ করেছে সরকার।

জানা গেছে, প্রতিটি ক্লাসের পর শিক্ষার্থীরা ১৫ মিনিট করে বিশ্রাম পাবে। এ সময়ে তারা খেলার ছলে সৃজনশীল ও উদ্ভাবনীমূলক কাজে নিয়োজিত থাকবে। ইতোমধ্যে দেশের তিন জেলায় চারটি বিদ্যালয়ে এ পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। যা পর্যায়ক্রমে সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চালু করা হবে।


সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্যক্রম আনন্দপূর্ণ করার কার্যক্রম শুরু করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ লক্ষ্যে মডেল হিসেবে মাগুরা জেলার হাজীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুড়িগ্রামে কুড়িগ্রাম ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও রৌমারী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং নেত্রকোনায় ৩৬নং বালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নতুনভাবে শিক্ষার্থীদের ক্লাস রুটিন ও পাঠাদান কার্যক্রমে আমূল পরিবর্তন আনা হয়েছে।

সূত্র জানায়, প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ক্লাস শুরুর আগে সকাল ৯টা ১৫ মিনিটে শরীরচর্চা ও ৯টা ৩০ মিনিট থেকে ক্লাস শুরু হয়ে থাকে। কোথাও ৩৫ মিনিট আবার কোথাও ৪৫ মিনিট করে বিষয় ভিত্তিক ক্লাস করানো হয়ে থাকে। বিকাল ৪টা ১৫ মিনিটে ক্লাস শেষে শিক্ষার্থীদের স্কুল ছুটি দেয়া হয়।

দেখা গেছে, মডেল এ চার বিদ্যালয়ে সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে শরীরচর্চা শেষে ১০টায় ক্লাস শুরু হবে। মাঝে ৩০ মিনিট খেলার জন্য বিশ্রাম দেয়া হবে। এরপর পাঠদানের জন্য প্রতিটি বিষয়ের জন্য ক্লাস সময় ৪৫ মিনিট করে নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রতিটি ক্লাস শেষে শিক্ষার্থীরা ১৫ মিনিট করে বিশ্রাম পাবে। সে সময়ে শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল ও উদ্ভাবনী কার্যক্রমে নিয়োজিত করা হবে। শিক্ষার্থীদের পচ্ছন্দ অনুযায়ী খেলার ছলে নতুন নতুন জ্ঞান সৃষ্টি করা হবে। বিকাল ৩টা ৪৫ মিনিটে ক্লাস শেষে বিদ্যালয় ছুটি দেয়া হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম আল হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, শিক্ষার্থীদের পাঠদানে একঘেয়েমি দূর করতে ক্লাসের সময় ও খেলার ছলে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করেছি। মডেল হিসেবে চার বিদ্যালয়ে নতুন রুটিন বাস্তবায়ন করা হয়েছে। পরবর্তী দুই মাস মনিটরিং করা হবে। এতে সফলতা আসলে যেখানে একটি শিফটে বিদ্যালয় পরিচালিত হচ্ছে সেখানে নতুন রুটিন অনুযায়ী পাঠদান কার্যক্রম শুরু করা হবে। এভাবে আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে দেশের ৬৫ হাজার ৫৯০ সরকারি বিদ্যালয়ে এ পদ্ধতি চালু করা হবে।

সচিব বলেন, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাঠদানে আনন্দপূর্ণ করতে আমরা এমন পদক্ষেপ হাতে নিয়েছি। এর ফলে শিক্ষার্থীরা আনন্দঘন পরিবেশে পাঠদানের সুযোগ পাবে। ক্লাসের জন্য নির্ধারিত ৪৫ মিনিট সময় নির্ধারণ করা হবে। প্রতিটি ক্লাসের পর শিক্ষার্থীরা ১৫ মিনিট বিশ্রাম পাবে। এতে করে শিক্ষকরা পরবর্তী ক্লাসের জন্য প্রস্তুতি নিতে পারবে। শিক্ষার্থীরাও এ সময়টা খেলার ছলে নতুন জ্ঞানার্জন করতে পারবে। এ জন্য বিদ্যালয়গুলোকে নতুনভাবে ঢেলে সাজানো হবে বলেও জানা তিনি।




  এই বিভাগ থেকে আরও সংবাদ

   শুক্রবার ঢাবি ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা: ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ
   জেএসসি থেকে জিপিএ ৫ থাকছে না
   বদলি চান এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা
   সরকারি হাই স্কুলের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা আজ
   এবারও ক্ষুদে পরীক্ষার্থীদের উত্তরপত্র পুনর্মূল্যায়নে ১৮০ টাকা
   খুবিতে ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়া শুরু
   পঞ্চম শ্রেণির খাতা মূল্যায়ন পদ্ধতিতে পরিবর্তন
   বেসরকারি শিক্ষকদের আগস্টের বেতন ব্যাংকে
   প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগের ফল সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে
   শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য বন্ধে বিদ্যালয়ে হবে কমিটি
   এমপির পছন্দের ব্যক্তিই হবেন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সভাপতি
   প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার সময় সূচি প্রকাশ
   বিসিএসে ভাইভা ভীতি কাটাতে চা-বিস্কুটের ব্যবস্থা
   কুয়েটে ১ম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা ১৮ অক্টোবর
   দুপুরের খাবার পাবে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা
   এইচএসসিতে ফেল থেকে পাস ৫৫৫ জন
   এ বছরই সরকারি হচ্ছে ১০ হাজার কলেজশিক্ষকের চাকরি
   শোক দিবস পালনে প্রাথমিকে ১৩ কোটি টাকা বরাদ্দ
   সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা
   কাল থেকে অনলাইনে শুরু হচ্ছে ঢাবি’র স্নাতক শ্রেণীতে ভর্তি
   গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রি পেলেন ১১৫১ শিক্ষার্থী
   ডেঙ্গু ও ছেলেধরার গুজব বিষয়ে শিক্ষা বোর্ডের নির্দেশনা
   ডেঙ্গু প্রতিরোধে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সর্তকতা জারি
   ৪০তম বিসিএস’র প্রিলিতে উত্তীর্ণ হলেন যারা
   ৪০তম বিসিএসের ফলাফল আজ
   বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬৪ হাজার আসনে লড়বে ১৩ লাখ শিক্ষার্থী
   ১৫তম শিক্ষক নিবন্ধনের লিখিত পরীক্ষা ২৬ ও ২৭ জুলাই
   নাগরপুরে বন্যায় ৯২ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ
   নুসরাতের আলিমের ফল কাঁদাল সহপাঠীদের
   পাসের হারে শীর্ষে কুমিল্লা, তলানিতে চট্টগ্রাম


  পুরনো সংখ্যা